Spread the love

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুইটি মসজিদে গত শুক্রবার ১৫ মার্চ ভয়াবহ হামলায় নিহত হন ৫০ জন মুসল্লি। অস্টেলিয়ার শ্বেতাঙ্গ সন্ত্রাসী ব্রেন্টন টারান্ট এ হামলা চালায়। আগামী শুক্রবার ২২ মার্চ এ হামলার সপ্তাহ পূর্ণ হবে। এ উপলক্ষে নিউজিল্যান্ডব্যাপী পালিত হবে ‘সম্প্রীতির জন্য হিজাব’ কর্মসূচি।

হামলার প্রতিবাদে ও নিহতদের স্মরণ ও শ্রদ্ধা জানাতে নিউজিল্যান্ডের সব ধর্মের নারীরা হিজাব পরে মুসলিমদের প্রতি সংহতি জানাবে।

এ কর্মসূচির আয়োজকরা জানান, গত শুক্রবারের হামলায় পুরো নিউজিল্যান্ড শোকাহত। হামলায় প্রাণ হারানো সব শহীদের মা, বাবা, সন্তান, সহকর্মী ও বন্ধুদের প্রতি ভালোবাসা ও সহমর্মিতা জানাতেই চাই। আমরা জানাতে চাই, মুসলিমরা নিউজিল্যান্ডে একা নয়, আমরা তাদের পাশে সবসময় আছি।

ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতেও এই কর্মসূচিতে নারীদের ব্যাপক সাড়া পড়েছে। অনেকে এর প্রসংশা করেছেন।

কর্মসূচির একজন আয়োজক থমাস বলেন, মুসলিম ভাই বোনদের পাশে দাঁড়াতে আমরা একদিন হিজাব পরতেই পারি।

নিউজিল্যান্ডের মুসলিম সম্প্রদায়ের লোকজন এমন উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে।

দেশটির ইসলামিক নারী কাউন্সিলের নেতা বলেন, এমন উদ্যোগ আমাদের জন্য সত্যি অনেক আনন্দের।

এই কর্মসূচি আয়োজনের উদোক্তা হলেন থায়া আশমান নামে এক নারী। তিনি দীর্ঘদিন ধরে মুসলিমদের সঙ্গে কাজ করছেন। আফগানিস্তানে স্বেচ্ছাসেবী ডাক্তার হিসেবে কাজ শুরুর পর তিনি মুসলিমদের সান্নিধ্যে আসেন।

আশমান বলেন, আমি এক আতংকিত নারীর কথা শুনেছি যিনি হিজাব পরে বের হতে ভয় পাচ্ছেন। কারণ হিজাব পরার কারণে সন্ত্রাসীরা তাকে লক্ষ্য করে হামলা চালাতে পারে। আমি বলতে চাই, ‘আমরা আপনার সঙ্গে আছি, আমরা চাই আপনি ঘরের মতো রাস্তাতেও যেন নিরাপদবোধ করেন, আমরা আপনাকে ভালোবাসি, সমর্থন ও শ্রদ্ধা করি’।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here