Spread the love

জি-মেইল ব্যবহার করে না এমন মানুষ নেই বললে চলে। আমরা প্রতিনিয়ত জি-মেইল ব্যবহার করে থাকি। অফিশিয়াল কাজে, পারসোনাল কাজে, কাউকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাঠাতে, এমনকি কোনো পণ্য বিক্রি করতেও আমরা জি-মেইল ব্যবহার করে থাকি। কিন্তু এই জি-মেইল ব্যবহার করলেও এর কিছু অসাধারণ সেবা আমাদের জানা নেয়। জি-মেইলে নতুন কিছু সেবা সংযুক্ত করা হয়েছে।

১. ড্রাফট করার সময় ভুলে মেইলটি কারও কাছে চলে যায়। এক্ষেত্রে কি করা যায়। জি-মেইলের নতুন পদ্ধতিতে সহজেই ওই মেইলটি ফেরত আনা যাবে। জি-মেইলের সেটিংস বিভাগে থাকা ‘আনডু’ অপশনটিতে ক্লিক করলেই হয়ে যাবে। জিমেইলে এখন ‘আনডু’ করার সময়সীমা বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। ফলে ৩০ সেকেন্ডের মধ্যে ভুলবশত প্রেরিত মেইল ফিরিয়ে আনা যাবে।

২. লক অপশনে আরও একটা নতুন ফিচার যোগ করেছে জি-মেইল। কোন মেইল পাঠানোর আগে সেই মেইলের সঙ্গে একটা নির্দিষ্ট টাইম সেট করে দেওয়া যাবে। যাকে মেইলটি পাঠানো হবে, তিনি মেইলটি খোলার সঙ্গে সঙ্গে সেই টাইম কাউন্ট শুরু হয়ে যাবে এবং নির্দিষ্ট সময় পর মেইলটি আর খোলা যাবে না।

৩. অনেক সময় দেখা যায়, একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে আপনাকেও কোনও একটি মেইলে সিসি করা হয়েছে। প্রত্যেকেই নিজের মতো মেইলের উত্তর দিচ্ছে এবং প্রত্যেকবারই আপনার ইনবক্সে এসে জমা হচ্ছে নতুন বাড়তি ও অপ্রাসঙ্গিক মেইল। স্বভাবতই আপনি অস্বস্তি বোধ করবেন। এক্ষেত্রে নিস্তার পাওয়ার সবচেয়ে সহজ উপায় মেইলটি মিউট করে দেওয়া।
৪. কেবল অনলাইনই নয়, এখন অফলাইনেও ব্যবহার করা যাবে জি-মেইল। সেটিংস অপশনে গেলেই পাওয়া যাবে এই অফলাইন পরিষেবা। এক্ষেত্রে আপনি মেইল কম্পোজ করা থেকে শুরু করে, অন্য মেইল দেখা- সবই করা যাবে। কেবল কোনও মেইল পাঠানো যাবে না। সেভ করে রাখা যাবে। ইন্টারনেট যোগ করার সঙ্গে সঙ্গে ওই সেভ মেইলটি নির্দিষ্ট ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের ঠিকানায় পৌঁছে যাবে।
৫. পুরানো মেইলের সন্ধান করা বা তা ডিলিট করা এখন আরও সুবিধাজনক হয়ে গেছে। সার্চ অপশনে গিয়ে, যে মেইলটার খোঁজ করছেন সেটা সম্পর্কিত কিছু লিখলে বা প্রেরকের নাম লিখলেই চলে আসবে নির্দিষ্ট মেইলটি, ডিলিট করা যাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here