Pratt School of Engineering Computer Science Students
Spread the love

 

 

বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়া মানেই আমরা বুঝি ইতিহাস,বিজ্ঞান,সাহিত্য,প্রকৌশল বিষয় নিয়ে পড়া। কিন্তু একটা বিষয় আমরা খুব কমই পড়তে চাই। তা হল কম্পিউটার। কম্পিউটার মানেই প্রোগ্রামিং আমরা তাই ভাবি। তাই অনেকে এই বিষয় কঠিন ভেবে পড়তে চাই না।

কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশন সম্পর্কে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের সংশ্লিষ্ট বিষয়ের প্রভাষক নাফিস ইরতিজার কিছু কথা তুলে ধরা হলঃ

অনেকের ধারণা কম্পিউটার মানেই শুধু প্রোগ্রামিং। অনেকে বলেন, কেউ কম্পিউটার বিজ্ঞান পড়ে মানেই সে প্রোগ্রামিং খুব ভাল পারে। কিন্তু আদতে এটি কম্পিউটার বিজ্ঞানের সিলেবাসের একটি অংশ। কম্পিউটার বিজ্ঞানের একজন শিক্ষার্থীকে বিশ্ববিদ্যালয়ে চার বছরে পুরো কম্পিউটার ব্যবস্থা ও নেটওয়ার্কিং সম্পর্কে খুঁটিনাটি পুরোটাই শেখায়। এই বিভাগে সাধারণত পড়ানো হয়ঃ

প্রথম বছরঃ বিভিন্ন প্রোগ্রামিং ভাষা যেমন সি, সি প্লাস প্লাস

দ্বিতীয় বছরঃ ডেটা স্ট্রাকচার, অ্যাগরিদম

তৃতীয় বছরঃ অপারেটিং সিস্টেম, কম্পিউটার নেটওয়ার্ক কিভাবে কাজ করে, হার্ডওয়্যারের বিভিন্ন কাজ, মাইক্রো কন্ট্রোলার, কম্পিউটার ইন্টারফেসিং কিভাবে হয় ইত্যাদি।

চতুর্থ বছরঃ বর্তমান বিশ্বের জনপ্রিয় বিভিন্ন বিষয় যেমন মেশিন লার্নিং, আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইত্যাদি।

কাদের জন্য কম্পিউটার বিজ্ঞান

কম্পিউটার বিজ্ঞান তাদের জন্য যাদের আগ্রহ আছে কম্পিউটারের উপরে। বর্তমান যুগ কম্পিউটারের যুগ। বর্তমানে গোটা বিশ্ব কম্পিউটার নির্ভর হয়ে যাচ্ছে। আমাদের ছোটদের থেকে শুরু করে আমরা বড়রাও গুগল এবং বিভিন্ন কম্পিউটার গেমসের সঙ্গে সম্পৃক্ত হচ্ছি। এই সম্পর্কে যাদের জানার ইচ্ছা তারাই কম্পিউটার বিজ্ঞান নিয়ে পড়তে পারে। যেমন গুগল কিভাবে কাজ করে, আমরা যেই গেম খেলি তা কিভাবে কাজ করে, তা কিভাবে বানানো হয়, এসব জানার আগ্রহ যার আছে তারই কম্পিউটার বিজ্ঞান পড়া উচিত। কম্পিউটার বিজ্ঞান পড়তে হলে গণিত , যুক্তি ইত্যাদি খুব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তবে কম্পিউটার পড়তে যথেষ্ট ধৈর্যের ব্যাপার আছে। অনেক সময় সমস্যার সমাধার করতে দিনের পর দিন লেগে থাকতে হবে। তাই কম্পিউটার বিজ্ঞান পড়ার আগে এই বিষয়টি মাথায় করতে হবে।

ভবিষ্যৎ

কম্পিউটার বিজ্ঞান শিক্ষার্থীদের অনেক সুযোগ আছে। কম্পিউটার চাহিদা , পুরা বিশ্ব এখন কম্পিউটার নির্ভর হওয়ায় বর্তমানে কম্পিউটার বিজ্ঞানের চাহিদাও বাড়ছে। কেউ চাকরি করতে চাইলে তার সুযোগও আছে। এমনকি কেউ উদ্যোক্তা হতে চাইলে তাও হতে পারবে। বর্তমানে কম্পিউটার বিজ্ঞানের শিক্ষার্থীরা স্টার্টআপ শুরু করছে স্নাতক শেষ করে। শুধু তাই নয় একজন কম্পিউটার বিজ্ঞানের শিক্ষার্থীদের জন্য দেশে ও দেশের বাইরে গুগল, সিসকো, ফেসবুকসহ বড় বড় প্রতিষ্ঠানে চাকরীর সু্যোগও আছে। যদিও এসব জায়গায় চাকরীর জন্য প্রোগ্রামিং্যে পারদর্শী হতে হবে। আমাদের দেশে অনেক কম্পিউটার ফার্ম আছে যেখানে কম্পিউটার বিজ্ঞান পড়ে ডেভেলপার হিসেবে যোগদান করার সুযোগ আছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here